ফেসবুক মার্কেটিং

ফেসবুক মার্কেটিং সেবা

বর্তমান যুগ ডিজিটাল মার্কেটিং এর যুগ। আর ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে পপুলার হল ফেসবুক মার্কেটিং। এটি দু’ভাবে- অরগানিক ও পেইড।
পেইড মার্কেটিং হল ফেসবুকে ডলার দিয়ে বুস্ট করা। আবার যথাযথ ভাবে বুস্ট করতে না পারলেও টাকাটা বৃথাই নস্ট হবে।
আমরা Facebook Ads এর মাধ্যমে অথবা অরগানিক মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার ব্যবসার আরও বেশি লাভ করে দিতে পারি।
সঠিকভাবে ফেসবুক মার্কেটিং সেবা পাওয়ার জন্য আজই যোগাযোগ করুন আমাদের সাথে।

আমাদের ফেসবুক মার্কেটিং সেবা ও মূল্য:

  • ফেসবুক প্রোফাইল সাজানো। এক কালীন প্রফাইল এসইও ফেন্ডলি করে সাজানোর মূল্য- ৫০০ টাকা।
  • লাইক, রিচ, ম্যাসেজ, লিড বুস্টসহ সকল ধরনের ফেসবুক বুস্ট মার্কেটিং। মূল্য:- রিয়াল লাইক প্রতি হাজার ৫০০ টাকা
  • নিয়মিত ফেসবুক পোস্ট করে দেওয়া । প্রতি পোস্ট এর জন্য ছবি ও কন্টেন্টসহ মূল্য- ৪০০ টাকা।
  • মজার ফেসবুক স্ট্যাটাস তৈরি করে দেওয়া। প্রতি মজার মজার স্ট্যাটাসের জন্য ছবি ও কন্টেন্টসহ মূল্য- ৪০০ টাকা।
  • ফেসবুকের ফটো তৈরি করে দেওয়া। অনলাইন সফটওয়্যারের মাধ্যমে ইউনিক ছবি প্রতিটির মূল্য- ১০০ টাকা।
  • ফেসবুক লাইভ এর ব্যবস্থা করা। ফেসবুক পেইজে লাইভ প্রতি দশ মিনিট ৫০০ টাকা।
  • প্রোফাইল পিকচারের ক্যাপশন আইডিয়া প্রদান। একটি প্রোফাইল পিকচার তৈরি ও ক্যাপশন কনটেন্ট মূল্য- ২০০ টাকা।
  • ফেসবুক ছবিসহ নানা বিষয়ের পরামর্শ প্রদান। মূল্য আলোচনা সাপেক্ষে।
  • আইডি রিকভার করে দেওয়া। এর খরচ আলোচনা করে নির্ধারণ করা হবে।

মাসিক প্যাকেজে ফেসবুক মার্কটিং সার্ভিস

কম্পানীর ফেসবুজ পেজ অথবা আইডি পরিচালনা অর্থাৎ সঠিক পদ্ধতিতে সোসাল মিডিয়া মার্কেটিং মাসিক প্যাকেজ এটি।
প্যাকেজের সর্বনিম্ন মূল্য প্রতি মাসে পাঁচ হাজার (৫০০০) টাকা মাত্র। যা মাসের ১০ তারিখের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে।
এই প্যাকেজের মধ্যে থাকবে,

  1. ফেসবুক প্রোফাইল সাজানো ও প্রোফাইল পিকচারের ক্যাপশন তৈরি করা যতবার প্রয়োজন।
  2. লাইক, রিচ, ম্যাসেজ, লিড বুস্টসহ সকল ধরনের ফেসবুক বুস্ট মার্কেটিং।
  3. মজার ফেসবুক স্ট্যাটাস তৈরি করে সপ্তাহে কমপক্ষে ২টি ফেসবুক পোস্ট করে দেওয়া ।
  4. মাসে একটি ফেসবুক লাইভ এর ব্যবস্থা করা। অথবা ২টি ভিডিও তৈরি করে পোস্ট দেওয়া।
  5. ফেসবুক মার্কেটিং এর রিপোর্ট প্রদান।

অতিরিক্ত ইন্টারনেট মার্কেটিং সেবা

এছাড়াও ইউটিউব চ্যানেল তৈরি করে বেসিক এসইও করা হবে। এবং ফেসবুকের জন্য কৃত ভিডিও ইউটিউব এ আপলোড করা হবে।
এবং সেটি এসইও করে দেওয়া হবে। লিংকডিন, গুগল ম্যাপ তৈরি করা হবে। এবং প্রয়োজনীয় আইটি পরামর্শ প্রদান করা হবে।
উপরে উল্লিখিত বিষয় ছাড়াও অন্যান্য ডিজিটাল মার্কেটিং অর্থাৎ আইটি সেবা প্রদান করা হবে। তবে সেগুলোর জন্য আলোচনা সাপেক্ষে
সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা হবে।

পেইড মার্কেটিং কি?

নিচে আমাদের প্রদত্ত ফেসবুক এ্যাড ও ফেসবুক মার্কেটিং বিষয়ক সকল প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করা হল। যদি মনোযোগ দিয়ে পড়েন, তাহলে আশা করি অনেক কিছুই জানতে পারবেন। যদি কোন প্রশ্নের উত্তর না পান অথবা ফেসবুকের মার্কেটিং পদ্ধতি সম্পর্কে একদিনের ওয়ার্কশপ বা লং কোর্স করতে চান, তাহলে ফোন করুন আমাদের সাথে

কিভাবে ফেসবুক এ্যাড দেই?

ফেসবুক ব্যাবহারের সময় সাধারনত sponsored লেখা যে বিজ্ঞাপন দেখা যায় সেটিই Facebook Ads। এরকম এ্যাড দিতে হলে ব্যবসার নামে একটি ফেসবুক পেজ লাগে। যেমন, facebook.com/shebarubd, facebook.com/promotechltd ইত্যাদি। এবং মাস্টার কার্ড, ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট কার্ড, পেপাল, পাওনিয়ার ইত্যাতির প্রয়োজন হয়।
কমপক্ষে ৫০০/- (পাঁচশত) টাকা; ৫ দিনের জন্য। তবে প্রতি দিনের জন্য ১০০০ টাকা বাজেট হলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

বিনামূল্যে ফ্রিল্যান্সিং শিখু!!!

যারা ফ্রিতে ডিজিটাল মার্কেটিং/ফ্রি ল্যান্সিং করে প্রতি মাসে নিশ্চিত আয় করতে চান তাদের জন্যই মূলত এ কোর্সটি।
রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন

ফেসবুক গ্রুপ:
বিনামূল্যে ফ্রিল্যান্সিং শিখতে বা ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে নানা প্রশ্নের সামাধান পেতে মেম্বার হতে পারেন “ডিজিটাল মার্কেটিং হেল্পলাইন” ফেসবুক গ্রুপটিতে।
গ্রুপ লিংক https://www.facebook.com/groups/digitalhelp

কেন আমাদের সেবা নেবেন?

ফেসবুকে এ্যাড মানে শুধুই ডলার খরচ নয়; এটি সৃজনশীলতা, অভিজ্ঞতা ও মার্কেটিং দক্ষতার সমন্বয় । সেবারু এ্যাড হেল্পলাইনের সাহায্য তিনটি কারণে প্রযোজন হয় যথা:

আমাদের অনলাইন মার্কিটিং অভিজ্ঞতা:

অভিজ্ঞ ও সাধারণ লোকের কাজের পার্থক্য অনেক; বিশেষত Facebook Ads এর ক্ষেত্রে। আমরা প্রতিনিয়ত অনেক ধরনের ব্যাবসার জন্য বহু এ্যাড দিয়ে আসছি। আমরা Facebook community standard, Ad policy, Conversion rate, Bid, Placement, Detailed interest এ বিষয়গুলো মাথায় রেখে এ্যাডভার্টাইজিং করে থাকি। তবে হ্যাঁ, আপনিও অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন। কিন্তু মনে রাখবেন, অভিজ্ঞতার পেছনে ছুটতে ছুটতে যেন ব্যবসার ক্ষতি না হয়।

পেমেন্ট চ্যানেল:

ব্যাংকে অনেক ফরমালিটি করে একটি ডুয়েল কারেন্সি কার্ড নেওয়ার পরও নানা ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে, অনেক সময় জানা না থাকার কারণে হঠাৎ করে দেখা যায় অনেক টাকা কেটে নিয়েছে। এর পর শুরু হয় ব্যাংকে দৌড়া দৌড়ীর ভোগান্তি। পেপাল বা অন্য কোন মাস্টার কার্ডের জন্য দেশের বাইরের কারো সাহায্য নিয়মিত চাওয়াও ঝামেলার। যারা একবার এসকল ঝামেলায় পড়েছে, তারা আবার ঘুরে আমাদের মত এজিন্সির কাছে আসেন। এর মধ্যেই শুধু শুধু সময় ও শ্রম নষ্ট হয়। অথচ সে সময়টা নিজ ব্যবসার ডেভেলপমেন্টে কাজে লাগালে আরও বেশি লাভ হতো।

ক্রিয়েটিভ কন্টেন্ট:

আমরা সাধারণত ফেসবুক এ্যাডের কন্টেন্ট তৈরী করে দেই। অথবা ক্লাইন্টের তৈরি করা কন্টেটের ব্যাপারে সঠিক পরামর্শ দেই।
অনেক সময় টেক্স কন্টেট বা ফেসবুক ছবির কন্টেট এ ভুল করার কারণে এ্যাড গ্রহণযোগ্য হয় না। হলেও এ্যাডের ফলাফল ভালো পাওয়া যায় না। গ্রাহক হয়তো না বুঝেই হাজার হাজার ডলার ব্যায় করে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। সুতরাং সামান্য কিছু সার্ভিস চার্জ দিয়ে নিশ্চিন্তে ও নিরাপদে আপনার ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন। অন্যথায় এক ফেসবুক বিজ্ঞাপনের পিছনে ছুটে সময়, শ্রম ও মেধার অপয় ঘটিয়ে নিজের ব্যবসাকে ক্ষতির মুখে ঠেলে দেবেন।

কিভাবে ফেসবুক লাইক বাড়ানো যায়?

এর জন্য ফেসবুক লাইক ক্যাম্পেইন করতে হয়। এক্ষেত্রে এ্যাডের সঠিক টেক্স ও ছবির লেখা এবং সঠিক ফটো সাইজ বেশ ভুমিকা রাখে। সাধারণত প্রতিটি লাইকের জন্য ৫০ পয়সা লাগে। তবে অনেকে সফটওয়্যারের মাধ্যমে অস্বাভাবিক বেশী লাইকের নিশ্চয়তা দেয়। এইসব ভুয়া লাইক কিনলে আপনার পেজের স্থায়ী ক্ষতি হবে। এইসব এ্যাড এজেন্সি সধারণত তাদের এ্যাড ম্যানেজার দেখাতে চায় না। কিন্তু আমরা এ্যাড ম্যানেজার দেখিয়ে দেবো। এবং যেভাবে সঠিক লাইক বাড়ানো যায় সেরকম করেই এ্যাড ক্যাম্পেইন রান করব। এবং প্রোফাইল পিকচারের ক্যাপশন আইডিয়া প্রদান করব।

যদি ফেইসবুকে এ্যাড দিতে চা তাহলে করণীয়

এ্যাড দেওয়ার জন্য আপনার পেজের এ্যাডভার্টাইজার বানিয়ে দিতে হবে। মনে রাখবেন এতে আপনার পেজের কোন ক্ষতি কিংবা গোপনীয়তার ব্যাঘাত ঘটবে না। আপনি চাইলে এ্যাড ক্যাম্পেইন শেষ হলে আবার এ্যাডভার্টাইজার বাতিল করতে পারবেন। আমাদের অফিসে এসে কিংবা ফেসবুক, গুগলমিট, জুম, হোয়াটস্ আ্যাপের মাধ্যমে মিটিং করে সার্ভিস চার্জ ও অন্যান্য সকল বিষয় সম্পর্কে চুক্তি করতে পারেন।
অত:পর আমরা এ্যাড রান করার পর চুক্তি অনুযায়ী টাকা বিকাশে বা ব্যাংকের মাধ্যমে অনলাইন পেমেন্ট করতে পারবেন।

কেন আমাদের সেবা নেবেন?

  • দশ বছরের বেশি অভিজ্ঞাতা সম্পন্ন কনসালটেন্ট।
  • এ্যাড ক্যাম্পেইনের জন্য প্রয়োজনীয় ফ্রি পরামর্শ প্রদান।
  • স্বচ্ছতার সাথে সেবা প্রদান করা হয়।
  • কোন অবাস্তব প্রমিজ করা হয় না, যেমন এতগুলো লাইক এত গুলো রিচ ইত্যাদি।
  • এ্যাড রান করার পর টাকা দেওয়ার সুযোগ।
  • এ্যাডের স্বচ্ছ রিপোর্ট প্রদান।
  • সামান্য ফি গ্রহণের মাধ্যমে এ্যাড সম্পর্কে বেসিক ধারণা প্রদান।

যে সকল এ্যাড ক্যাম্পেইন করা হয় না:

ফেসবুকের বিধি নিষেধের কারণে কিছু পণ্য, সেবা ও ব্যাবসা রয়েছে যেগুলোর এ্যাড আমরা দেই না, সেগুলোর একটি তালিকা নিচে দেয়া হলো:​

  • অসৎ উদ্দেশ্যে দেয়া এ্যাড।
  • এডাল্ট প্রোডাক্ট/টয়/পর্নোগ্রাফী বিষয়ক এ্যাড।
  • মডেল বা Escort এজেন্সির বিজ্ঞাপন।
  • চাকুরীর অফার মূলক এ্যাড।
  • ম্যানপাওয়ার বিজনেস।
  • কাউকে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য বা ঘৃণা-বিদ্বেষ মূলক এ্যাড।

ফেসবুক মার্কেটিং প্রশিক্ষণ সুবিধা :

প্রোমোটেক একাডেমি পরিচালিত ফেসবুক মার্কেটিং এর উপর অনলাইন ও অফলাই ওয়ার্কশপ এ অংশ গ্রহণ করতে পারেন। আপনার ব্যবসার প্রচারে এই প্রশিক্ষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। ফেসবুক মার্কেটিং সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়বস্তু নিয়ে দিন ব্যাপি এই কোর্সের তুলনা হয় না। আপনি চাইলে কাস্টমাইজ করেও কোর্সটি করতে পারেন। যেমন, ওয়ান টু ওয়ান ট্রেনিং, অফডে ট্রিনিং, আওয়ারলি ট্রেনিং ইত্যাদি।
এই কোর্স সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এখানে



ডিজিটাল মার্কেটিং ও ফ্রিল্যান্সিং বিষয়ে জানতে নিচে কমেন্ট করুন। সেবারু ডটকম (shebaru.com) থেকে খুব দ্রুত উত্তর দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।
আমাদের সাথে যুক্ত হতে: ফেসবুক গ্রুপ ।। ইউটিউব চ্যানেল।। যোগাযোগ
মোবাইল+হোয়াটসঅ্যাপ: +8801790550000 (সকাল ১০ – রাত ৯ টার মধ্যে কল করুন)

লেখাটিতে উপকার পেয়েছেন? আবার পড়তে চান? তাহলে শেয়ার করুন।

1 thought on “ফেসবুক মার্কেটিং সেবা”

  1. বর্তমানে ফেসবুক মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনেকেই সফল, তবে তারা কিন্তু একদিনে সফলতার মুখ দেখেন নাই। অবশ্যই তার জন্য সঠিক প্লানিং এর প্রয়োজন হয়েছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published.