ভারতে ক্যান্সার চিকিৎসা

ভারতে ক্যান্সার চিকিৎসা ও খরচ

ক্যান্সার চিকিৎসা মাণ ও খরচের দিক থেকে ভারতে সবচেয়ে নাম করেছে যশোদা হাসপাতাল। এটি ভারতের অন্যতম ক্যান্সার হাসপাতাল হিসেবে খ্যাত।
এছাড়াও ফোর্টিস মেমোরিয়াল রিসার্চ ইনস্টিটিউট, অ্যাপোলো হসপিটাল চেন্নাই ও টাটা মেমোরিয়াল খুবই ভালো মানের ক্যান্সার হাসপাতাল হিসেবে খ্যাত।

৩ টি ক্যন্সার সেন্টার সমৃদ্ধ যশোদা হাসপাতাল

ভারতের হায়দ্রাবাদ শহরে ক্যান্সার চিকিৎসার নতুন দিগন্ত উম্মচিত করেছে যশোদা হাসপাতাল। ক্যান্সার চিকিৎসায় সর্বাধুনিক র‌্যাপিড-আর্ক রেডিও থেরাপী
টেকনোলজিতে বিশ্বের সবচেয়ে বিশি সংখ্যক ক্যান্সার রোগীর সফল চিকিৎসা করেছে যশোদা হাসপাতাল। এ যাবত বিশ হাজারেরও বেশি ক্যান্সার চিকিৎসা
প্রদান করেছে এ হাসপাতালটি। আধুনিক ক্যান্সার চিকিৎসার নতুন দিশারী ট্রিপল এফ রেডিও সার্জারি চিকিৎসার পথ প্রদর্শক যশোদা হাসপাতাল।

ভারত, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুরের সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতাল থেকে ডাক্তার সিরিয়াল ও মেডিকেল ভিসার জন্য ০১৭১৬-৪৭৪৬৭৬

বাংলাদেশী ক্যান্সার রোগীদের জন্য যশোদার সেবা সমূহ

প্রতি বছর প্রায় ১২ লক্ষ্য রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করে যশোদা হাসপাতাল (Yashoda Hospitals)। এর মধ্যে প্রচুর বাঙ্গালী রয়েছে।যারা ক্যান্সার
ছাড়াও ব্রেইন ও স্পাইন টিউমার, কিডনী ও প্যানক্রিয়াস ট্রান্সপ্লান্ট, হার্ট ও ফুসফুস প্রতিস্থাপন ইত্যাদি চিকিৎসা নিয়ে থাকেন।
যে কারণে বাংলাদেশী রোগীদের জন্য যশোদা হাসপাতাল বিশেষ সেবা চালু রেখেছে। নিচে সেগুলো বর্ণনা করা হল-

  • অগ্রাধিকা ভিত্তিতে ডাক্তারের সাথে অ্যাপয়েন্টমেন্ট ও সার্জারী, যাতে সময় ও খরচ দুটোরই সাশ্রয় হয়।
  • এয়ারপোর্ট বা ট্রেন স্টেশন থেকে ফ্রি পিকআপ এবং চিকিৎসা শেষে আবার পেঁৗছিয়ে দেয়।
  • বাংলাদেশী ক্যান্সার রোগীদের জন্য আলাদা ডেক্স রয়েছে যশোদা হাসপাতালে।
  • হাসপাতালের পাশেই কম মূল্যে হোটেলের ব্যবস্থা। যেখানে রান্না করে খাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে।
  • ভাষাগত সমস্যা দূর করতে চিকিৎসা চলাকালীন বাঙ্গালী সহায়তাকারীর ব্যবস্থা করেছে যশোদা হাসপাতাল।
  • স্বল্প সময়ের মধ্যে মেডিকেল রিপোর্ট দেখে রোগ সম্পর্কে ডাক্তারের মতামত প্রদান করে।
  • বাংলাদেশী রোগীদের জন্য অনলাইন ডাক্তার দেখানোর সুযোগ রয়েছে।
  • হাসপাতালে আসার আগেই রোগীর ট্রিটমেন্ট প্লান ও চিকিৎসা খরচ সম্পর্কে অগ্রিম ধারণা প্রদান করে থাকে।

প্রায় ২৪০০ বেড, ৩টি আলাদা আলাদা হাসপাতাল, ৬২টি মেডিকেল স্পশালিটি ডিপার্টমেন্ট, অনেক ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ সহ ৮০০ এর অধিক ডাক্তর ও ১০ হাজারেরও
বেশি জনবল নিয়ে সেবা প্রদান করছে যশোদা হাসপাতাল।

এছাড়াও থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর ও ইন্ডিয়ার ৫০+ সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতাল থেকে ডাক্তার সিরিয়াল ও ভর্তির ব্যবস্থা করে থাকি।
সুতরাং সব ধরনের মেডিকেল ভিসার জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

গত আড়াই দশকে ভারতে ক্যান্সারের বোঝা দ্বিগুণেরও বেশি বেড়েছে এবং জনসংখ্যার (মূলত জনসংখ্যার বয়সের কাঠামোর পরিবর্তন) এবং মহামারীবিজ্ঞানের উত্তরণ সহ অনেক কারণেই ভবিষ্যতে এই প্রবণতা বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। যোগাযোগযোগ্য থেকে অ-যোগাযোগযোগ্য) এবং কেস সনাক্তকরণ বৃদ্ধি করে। ঘটনা এবং মৃত্যুহারের সাম্প্রতিক অনুমান অনুসারে ভারতে ক্যান্সারের এক মিলিয়নেরও বেশি নতুন কেস দেখা গেছে যা কেবলমাত্র 2018 সালেই 700,000 এরও বেশি মারা গিয়েছিল। যদিও দেশে ক্যান্সারের ক্ষেত্রে ক্রমবর্ধমান বোঝা অনেক টি ক্যান্সার বিশেষজ্ঞদের জন্য উদ্বেগের কারণ, ক্যান্সারের যত্নের পরিবর্তিত ব্যয় জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের উদ্বেগজনক করে তুলেছে। জুলাই 2017 – জুন 2018 এর মধ্যে পরিচালিত সাম্প্রতিক জাতীয় নমুনা সমীক্ষা (এনএসএস) 75 তম রাউন্ড ভারতে ক্যান্সারের যত্নের সাথে সম্পর্কিত উদ্বেগজনক ছবি প্রকাশ করেছে। সম্প্রতি প্রকাশিত তথ্যের উপর ভিত্তি করে, আমরা জাতীয় ও রাজ্য পর্যায়ে ক্যান্সার যত্ন নেওয়ার জন্য ব্যয়ের সাথে যুক্ত বড় বৈশিষ্ট্যগুলি সহ চিকিত্সা এবং অ-চিকিত্সা ব্যয় এবং পাবলিক-ব্যক্তিগত পার্থক্য উপস্থাপন করি।

ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের চেয়ে আরও কয়েকটি উদ্বেগজনক বিষয় রয়েছে। একজনের চিকিত্সার জন্য অর্থ নেই। ক্যান্সারের প্রকোপ এবং এর চিকিত্সা ব্যয়গুলির সাম্প্রতিক স্পাইকটি দেওয়া, এটি শীঘ্রই কেবল অনুমানের চেয়ে বাস্তবতা হতে পারে। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডাব্লুএইচও) এর মতে, ভারতে প্রতিবছর প্রায় ১০ লক্ষ নতুন কেস পাওয়া যায়।

আরও উদ্বেগজনকভাবে, ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে বছরে প্রায় 5 লক্ষ মানুষ মারা যায়, এবং ডাব্লুএইচওর ২০১৫ সালের মধ্যে এই সংখ্যা lakh লাখে পৌঁছে যাওয়ার আশা করে। ২০২৫ সালের মধ্যে এই ঘটনা পাঁচগুণ বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং এর প্রকোপটি ১৯% হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে 2020 সালের মধ্যে পুরুষদের মধ্যে এবং 23% মহিলাদের মধ্যে।

আন্তর্জাতিক ক্যান্সার গবেষণা প্রকল্প গ্লোবোকান ২০১২ অনুসারে, years৫ বছর বয়সের আগে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি মাত্র .1.১%, বীমাকারীরা দাবি করেছেন যে পাঁচটি ক্যান্সারের দাবির মধ্যে একটি হ’ল ৩ 36 থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে আপনারা ..

স্ক্রিনিং এর গুরুত্ব

যদি প্রাথমিকভাবে সনাক্ত করা হয় তবে ক্যান্সারের চিকিত্সা কেবল কার্যকর নয়, তবে ব্যয়গুলিও কম হয়। আপনি এই জাতীয় স্ক্রিনিংয়ের জন্য সেকশন 80 ডি এর অধীনে বার্ষিক 5000 টাকা পর্যন্ত কর ছাড়ের সুবিধা নিতে পারেন (প্রাথমিক স্ক্রিনিং, স্বল্প ব্যয় দেখুন)।

“গর্ভাশয়, স্তন, কোলন, ফুসফুস, প্রোস্টেট, ডিম্বাশয় ইত্যাদির মতো প্রচলিত ক্যান্সারগুলি রুটিন স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমে সনাক্ত করা যায়। সিতে স্ক্রিনিং প্রোগ্রামগুলির কারণে বেঁচে থাকার একটি নির্দিষ্ট উন্নতি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।”


প্রিয় পাঠক, প্রশ্ন বা পরামর্শ থাকলে নিচের কমেন্ট বক্সে লিখুন, খুব দ্রুত উত্তর দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।
সংকলনে: আবু জাফর রাজু, মেডিকেল ভিসা কনসালটেন্ট ( ভারত, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুর)।
আলাপন: +8801711981051 (সকলা ১০ টা-রাত ১০ টা)
সর্বশেষ আপডেট করা হয়েছে: 5 March 2022

লেখাটিতে উপকার পেয়েছেন? আবার পড়তে চান? তাহলে শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.