অনলাইন পেমেন্ট

অনলাইন পেমেন্ট পদ্ধতি ও সাবধানতা টিপস

অনলাইন পেমেন্ট কি? কিভাবে করতে হয়? এক কথায় অনলাইন পেমেন্টের খুটি-নাটি বিষয় সম্পর্কে অনেক বিষয় জানতে হয়। আর তা না হলে নিজের ক্রেডিট কার্ডের ডলার
খোয়া যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই যে কোন ধরনের পেমেন্ট অনলাইনের মাধ্যমে কাউকে দেওয়ার আগে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো তুলে ধরা হল।

কি কি কারণে অনলাইন পেমেন্ট করতে হয়?

সাধারণত বিদেশী বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করার জন্য ভর্তি ফি দিতে হয়, এ ছাড়াও GRE, IELTS, TOEFL, GMAT Registration Fee পরিশোধ করতে ডুয়াল কারেন্সি ভিসা,মাস্টারকার্ড বা ক্রেডিট কার্ড লাগে। এছাড়াও যেসব ফী পরিশোধ করতে পারবেন তা হল,

  • বিশ্ববিদ্যালয়ে আবেদন ফী
  • আইইএলটিএস রেজিস্ট্রেশন ফী
  • জিআরই রেজিস্ট্রেশন ফী
  • টোফেল রেজিস্ট্রেশন ফী
  • জিম্যাট/স্যাট রেজিস্ট্রেশন ফী
  • স্টুডেন্ট ভিসা আবেদন ফী
  • জব ভিসা আবেদন ফী

অনলাইন পেমেন্ট পদ্ধতি

অনলাইনে পেমেন্ট করার জন্য কিছু নিয়ম বা পদ্ধতি রয়েছে। যেমন প্রথম ধাপে আপনার একাউন্টের Username আর Password দিয়ে যে সাইটে পেমেন্ট করতে চান
সেখানে একটি একাউন্ট করতে হবে। দ্বিতীয় ধাপে যদি দেশের মধ্যে হয় তাহলে বিকাশ/রকেট বা ভিসা কার্ড অথবা ব্যাংকের মাধ্যমে পেমেন্ট করতে পারেন।
আর যদি বিদেশে হয় তাহলে ডুয়েল কারেন্সি কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট করা যাবে। তৃতীয় ধাপে পেমেন্ট কমপ্লিট হলে সংশ্লিষ্ট প্রতিস্ঠার আপনাকে
মেইল এর মাধ্যমে জানিয়ে দেবে।অর্থাৎ আপনার বিলের ডিজিটাল সিলিপ পাঠিয়ে দেবে।

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে গুগলে অনলাইন পেমেন্ট, অনলাইন পেমেন্ট পদ্ধতি, অনলাইন পেমেন্ট সার্ভিস, অনলাইন পেমেন্ট সার্ভিস কি? ইত্যাদি
লিখে সার্চ দিলে অনেক তথ্য পেয়ে যাবেন।

ই-পেমেন্ট একাউন্ট প্রসেসিং কারা করে?

ই-পেমেন্ট বা অনলাইন পেমেন্ট প্রসেসে যেসব কোম্পানী মাধ্যম বা সার্ভিস প্রোভাইডার হিসেবে কাজ করে এমন প্রচলিত,
কার্যকর ও একসেপ্টেড প্রতিষ্ঠান হল পেপাল (PayPal)। এ রকম আরও রয়েছে এলার্টপে,পাইওনিয়ার, ই-গোল্ড ইত্যাদি।
আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে পেপাল, এলার্টপে, ডিসকভারসহ বিভিন্ন ই-পেমেন্ট সিস্টেম বিদ্যমান রয়েছে।

অনলাইন পে করার দেশি কোম্পানি ও সার্ভিস চার্জ

আজকাল বাংলাদেশ ও ইন্ডিয়ার বেশ কিছু আইটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে বা যারা সাধারণত ফ্রিল্যান্সিং বা আউটসোর্সিং করে আপনার রেজিস্ট্রেশন/আবেদন ফী এর ১০%
তাদেরকে দিতে হবে সার্ভিস চার্জ বাবদ। যেমন আপনি যদি ১০০ ডলার পরিশোধ করতে চান, আমাদেরকে ১১০ ডলার দিতে হবে।
তবে পেমেন্ট গেটওয়ে এর সুবিধার কথা চিন্তা করলে আমরা এখনো উন্নত দেশ গুলোর থেকে অনেক পিছিয়ে। বাংলাদেশ এ বেশ কিছু পেমেন্ট গেটওয়ে রয়েছে।
এর মধ্যে যে পেমেন্ট গেটওয়ে গুলো বেশি পরিচিত তা হল, SSLCOMMERZ, AamarPay, ShurjaPay, Easy Pay Way ইত্যাদি।

অনলাইন পেমেন্ট কার্ড কি?

বাংলাদেশে সাধারণত যাদের ব্যাংকে একাউন্ট রয়েছে তাদের হিসাবের বিপরীতে ব্যাংককতৃক বিভিন্ন কার্ড ইস্যু করা হয়। যদিও কার্ডের কতৃপক্ষ রয়েছে।
তাদের কার্ড ইস্যু করতে পারে ব্যাংকগুলো তাদের গ্রাহকের নামে। এই কার্ডই হলো ব্যাংক কার্ড। ব্যাংক কার্ড দু রকমের হয়ে থাকে যেমন ডেবিট কার্ড ও ক্রেডিট কার্ড।
আবার এমনও হতে পারে সিঙ্গেল কারেন্সি কার্ড ও ডুয়েল কারেন্সি কার্ড।


ডিজিটাল মার্কেটিং বিষয়ে প্রশ্ন থাকলে নিচে কমেন্ট করুন। সেবারু ডটকম (shebaru.com) থেকে খুব দ্রুত উত্তর দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।
দরকারী লিংক: ফেসবুক গ্রুপ হেল্পলাইন ।। ইউটিউব চ্যানেল।। যোগাযোগ
মোবাইল+হোয়াটসঅ্যাপ: +8801790550000 (সকাল ১০ – রাত ৯ টার মধ্যে কল করুন)
Last Update: December 4, 2021

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *