পার্ট টাইম চাকরি

ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি লাভের সহজ উপায়

ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি পাওয়া দেশের মাটিতে বেশ কঠিন হলেও বিদেশে কিন্তু তেমন কঠিন নয়। কারণ দেশে যত বেকার ছাত্র-ছাত্রী
বিদেশে কিন্তু তেমন নয়। তাই ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি করতে চান তবে বিদেশে উচ্চশিক্ষা করতে যাওয়াই সঠিক সিদ্ধান্ত।
তবে যারা বিদেশে পার্টটাইম জব করতে যেতে পারবেন না তাদেরও সুযোগ রয়েছে। এর মধ্যে উত্তম হল অনলাইন মাধ্যমে বিভিন্ন কাজ
করা। অত:পর সরাসরি কোম্পানিতেও কিছু কিছু জব লাভের সুযোগ রয়েছে। তবে এসব জবের জন্য অবশ্যই সংশ্লিষ্ঠ কাজের দক্ষতা
থাকা দরকার।

অনলাইনে ঘরে বসে ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি

ঘরে বসে মোবাইল বা কম্পিউটারের সাহায্যে আপনি বিভিন্ন ধরনের অনলাইন জব গুলি খুব সহজে করতে পারেন। অনলাইনে পার্টটাইম চাকরি করার জন্য দ্বিতীয় যে জিনিসটা দরকার সেটি হলো ইন্টারনেট কানেকশন থাকা। অনলাইনে যে কোন কাজ করার জন্য ইন্টারনেটের প্রয়োজন হয়। অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে আগ্রহী হলে ডিভাইসে ইন্টারনেট থাকার একান্ত জরুরী একটি ব্যাপার।পার্ট টাইম চাকরি, ছাত্রজীবনে পার্ট টাইম চাকরি, স্টুডেন্টদের জন্য পার্ট টাইম জব সবই করা সম্ভব যদি উপরের জিনিস গুলো থাকে। আর থাকে যথা যথ প্রশিক্ষণ। আর এর জন্য ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স, অনলাইন সাংবাদিকতা সহ নানা ধরনের কোর্স করে নিতে পারেন।

যে গুণাবলী থাকতে হবে

  • কাজের অভিজ্ঞতা
  • সময়ের গুরুত্ব বোঝা
  • যোগাযোগ কৌশল জানা
  • নতুন নতুন বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করা
  • নিজেকে ব্যস্ত রাখা
  • ভালো একটি সিভি তৈরি করা

টিউশনী করা
প্রাভেট টিউশনি নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নাই। অনেকে মনেকরে ছাত্রজীবনে নিজ স্বপ্নের চারাগাছে যত্নের সময়টুকু নামমাত্র মূল্যের বিনিময়ে অন্যের স্বপ্নবীজ বোনার নামই টিউশনি। এই প্রবাদ দিয়ে প্রাইভেট টিউটরদের ছোট করা হয় এবং নিরুৎসাহিত করা হয়।

রাইড শেয়ারিং
সময় এখন প্রযুক্তির দিকে মনোযোগ দিচ্ছে। প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে এখন বিভিন্ন ধরনের রাইড শেয়ারিং এর কাজ করা হচ্ছে। আপনি নিশ্চিয় Uber ও Pathao এর নাম শুনেছেন। এ গুলো হচ্ছে বাংলাদেশে সবচাইতে জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং প্লাটফর্ম। এখানে আপনি মোবাইল এপের মাধ্যমে রাইড করতে পারেন আবার নিজে একজন রাইডার হয়ে টাকা ইনকাম করে নিতে পারেন।

খণ্ডকালীন চাকরি
বিভিন্ন নামি দামি হোটেল, রেষ্টুরেন্ট, ফ্যাশন হাউস ও টুরিস্ট এলাকায় টুর গাইডার হিসেবে খন্ডকালীন চাকরি করতে পারেন। যাদের চাল-চলন ও কথার ভঙ্গিমায় স্মার্টনেস আছে, তারা এ ধরনের খন্ডকালীন চাকরি খুব সহজে ম্যানেজ করে নিতে পারবেন।

ফটোগ্রাফি
ফটোগ্রাফি অনেক শৌখিন ও ডিমান্ডএবল একটি পেশা। অনলাইন ও অফলাইন উভয় ক্ষেত্রে ফটোগ্রাফির প্রচুর ডিমান্ড রয়েছে। আপনার একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা থাকলে খুব সহজে ফটোগ্রাফির কাজটি করতে পারবেন।

বিদেশে রন্ধনশিল্পীদের প্রচুর চাহিদা কেন?

বিদেশে রন্ধনশিল্পীদের কাজের অপার সম্ভবনা রয়েছে। অর্থাৎ যারা বিভিন্ন হোটেল ও রিসোর্টে খাবার রান্না করে তাদের চাকরির সুযোগ বেশি।এ পেশার লোককে শেফ বলা হয়।
মধ্য প্রাচ্যের দেশগুলোতে এমন কি মালদ্বীপ, মালয়শিয়া, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুরের মতো উন্নত দেশে একজন প্রফেশনাল শেফের মাসিক বেতন বাংলাদেশী টাকায় কমপক্ষে ষাট থেকে সত্তর হাজার টাকা।
এ পেশার লোকদের ওয়ার্ক পারমিট এবং ভিসা সংক্রান্ত জটিলতাও অনেকাংশে কমে হয়। তবে যারা রন্ধন শিল্পটাকে ভালোবাসে তাদের জন্য এটা খুব ভালো।
এ পেশায় জব ভিসা নিতে চাইলে আগে পুষ্টিকর ভালো ভালো রান্নার রেসিপি জানতে হবে। রেসিপি সম্পর্কে আরও জানুন এখানে https://foodlinkbd.com

সুত্র: ব্লগার বাংলাদেশ

লেখাটিতে উপকার পেয়েছেন? আবার পড়তে চান? তাহলে শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.